মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ৩০ অক্টোবর ২০১৯

নারায়ণগঞ্জ জিমখানাস্থ রেলওয়ের অব্যবহৃত জলাশয় ও পতিত ভূমিতে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন কর্তৃক নির্মানাধীন শেখ রাসেল পার্কের বিস্তারিত তথ্যাবলী। (৩০ অক্টোবর ২০১৯)


প্রকাশন তারিখ : 2019-10-30

 

নারায়ণগঞ্জ জিমখানাস্থ রেলওয়ের অব্যবহৃত জলাশয় ও পতিত ভূমিতে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন কর্তৃক নির্মানাধীন শেখ রাসেল পার্কের বিস্তারিত তথ্যাবলী।

 

 

১।  ১৩/০৫/২০০৩ খ্রি. তারিখ হতে ০৭/১০/২০১৯ খ্রি. পর্যন্ত যোগাযোগ ও রেলপথ মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরে রেলওয়ের অব্যবহৃত জলাশয় ও পতিত ভূমিতে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন কর্তৃক জনস্বার্থে শিশু পার্ক নির্মাণের জন্য প্রায় ৫০টি পত্র দেয়া হয়েছে।

 

২।  ২০০৫ সালে বাংলাদেশ রেলওয়ে জমি বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে টেন্ডার আহ্বান করলে তৎকালীন নারায়ণগঞ্জ পৌরসভা মামলা দায়ের করে টেন্ডার স্থগিত করে।

 

 

৩।  ০৬/০৯/২০০৬ খ্রি. তারিখে বাংলাদেশ রেলওয়ে তৎকালীন নারায়ণগঞ্জ পৌরসভাকে বাজার মূল্যে রেলওয়ের ভূমি ক্রয়ের জন্য প্রস্তাব প্রেরণ করলে নারায়ণগঞ্জ পৌরসভা প্রতিকী মূল্যে লীজ প্রদানের জন্য অনুরোধ করেন।

 

৪।  ০৪/১১/২০০৯ খ্রি. তারিখে মাননীয় স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক পার্ক নির্মাণের জন্য রেলওয়ের ভূমি নারায়ণগঞ্জ পৌরসভার অনুকূলে হস্তান্তরের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য মাননীয় যোগাযোগ মন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেনকে ডিও লেটার প্রেরণ করে।

 

 

৫।  তৎকালীন যোগাযোগ মন্ত্রণালয় জেলা প্রশাসক, নারায়ণগঞ্জকে সরেজমিনে তদন্ত পূর্বক মতামতসহ প্রতিবেদন চেয়ে পত্র প্রেরণ করলে ০৪/০৫/২০১০ খ্রি. তারিখে জেলা প্রশাসক রেলওয়ের অব্যবহৃত ভূমি নারায়ণগঞ্জ পৌরসভার অনুকূলে দেয়ার জন্য মতামত প্রদান করেন।

 

৬।  ২০১০ সালে প্রনীত ডিটেইল্ড এরিয়া প্লান (ড্যাপ) এ জিমখানাস্থ রেলওয়ের ভূমিতে নারায়ণগঞ্জ শহরের নাগরিকদের জন্য বিনোদন পার্ক স্থাপনের নির্দেশনা রয়েছে। (দ্বিতীয় খন্ড, পৃষ্ঠা নং- ২১০-২১৬)

 

 

৭।  “প্রাকৃতিক জলাধার সংরক্ষণ আইন ২০০০” অনুযায়ী নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন জিমখানাস্থ রেলওয়ের বর্ণিত অব্যবহৃত জলাশয় সংরক্ষণের উদ্যোগ গ্রহণ করে বাস্তবায়ন করছে।

 

৮।  ২৭/০৩/২০১১ খ্রি. তারিখে নগর উন্নয়ণ অধিদপ্তর জিমখানাস্থ রেলওয়ের অব্যবহৃত ভূমিতে পার্ক নির্মাণের জন্য অনাপত্তির ছাড়পত্র প্রদান করেন।

 

 

৯।  ২০১৫ সালে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন বর্ণিত ভূমিতে পার্ক নির্মাণের জন্য টেন্ডার আহ্বান করে।

 

১০। ২০১৬ সালে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর কর্তৃক প্রনীত এ্যাকশন এরিয়া পরিকল্পনায় জিমখানা এলাকায় পার্ক  নির্মাণের লক্ষ্যে ৩৮.৫ একক ভূমি নির্ধারন করা হয়েছে।

 

         

১১। ১৪/১১/২০১৭ খ্রি. তারিখে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেমোরিয়াল ট্রাস্টে পার্কটি “শেখ রাসেল পার্ক” নামে নামকরণের জন্য অনুমতি চেয়ে আবেদন করলে ০৭/০৪/২০১৮ খ্রি. তারিখে অনুষ্ঠিত ট্রাস্টের সভায় তা অনুমোদন হয়।

 

১২। জনস্বার্থে ডিটেইল্ড এরিয়া প্লান (ড্যাপ) অনুযায়ী পার্ক নির্মাণের জন্য মহামান্য হাইকোর্ট বিভাগে মামলা (রীট পিটিশন নং- ৫৮৩৪/২০১৬) দায়ের করলে মহামান্য হাইকোর্ট ৪নং বিবাদী নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনকে পার্ক নির্মাণ ও জলাধার সংরক্ষণের জন্য নির্দেশ প্রদান করেন।

 

 

১৩। বাংলাদেশ রেলওয়ে কয়েক দফায় টেন্ডারের মাধ্যমে প্রায় ২.২৯ একর ভূমি ব্যক্তিমালিকানায় বিক্রয় করেছে।

 

১৪। ২৩/০৭/২০১৯ খ্রি. তারিখে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ণ ও সমবায় মন্ত্রণালয় সকল স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানকে শিশুদের শারিরীক ও মানসিক বিকাশের লক্ষ্যে শিশুবান্ধব সেবা প্রদান, পার্ক ও বিনোদন কেন্দ্র নির্মাণের প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য পরিপত্র জারী করেছেন।

 

 

 

 

 

 

 

 

 


Share with :

Facebook Facebook